নেইমারকে পাবে না বুঝে লওতারোর দিকে হাত বার্সেলোনার

0
64

নেইমার ও বার্সেলোনার পুনর্মিলন কি হবে? জবাব এখনো মেলেনি। দলবদলের এই মৌসুমে অন্তত জবাব মিলছে না।

জবাব কি হতে পারে তা মোটামুটি সবারই জানা। হয় ‘হ্যাঁ’ অথবা ‘না’। অনেকের মতেই ‘হ্যাঁ’ জয়যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। ২০১৭ সালে নেইমার বার্সা ছেড়ে পিএসজিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে গুঞ্জন চলছে এ নিয়ে। প্রতি দলবদলের মৌসুমেই বার্সা তাঁকে ফেরাতে মাঠে নামে। এ নিয়ে নিত্য-নতুন খবর চাউর হয় প্রতিদিন। কিন্তু দলবদলের মৌসুম শেষে দেখা যায় দৃশ্যটা মোটেও পাল্টায়নি, তাঁর আর বার্সায় ফেরা হয়নি। আবার দলবদলের মৌসুম এলেই নেইমারের বার্সায় ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে হিসেব কষাও থামেনি। তো, এই চিত্রে সম্ভবত এবার পরিবর্তন আসছে। বার্সা সভাপতি হোসে মারিয়া বার্তোমেউ জানিয়েছেন, এবার দলবদলের মৌসুমে নেইমারের পেছনে ছোটার কোনো ভাবনা নেই তাদের।

তাহলে বার্সার আক্রমণভাগের কী হবে! এবারের মৌসুমে কিছুই না জেতা বার্সার আক্রমণভাগ নিয়ে দুশ্চিন্তার অনেক কিছুই আছে। লিওনেল মেসিকে নিয়ে যেমন প্রশ্ন চলে না, তেমনি তাঁর ৩৩ বছর বয়সের প্রতিবন্ধকতা নিয়েও পাল্টা যুক্তি চলে না। সবাইকে এক সময় ক্যারিয়ার সায়াহৃ দেখতে হয়। এ পরিস্থিতিতে বার্সার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় নেইমার না থাকলে অন্য কেউ কি নেই? আছে তো বটেই, এবং সেই খেলোয়াড়টির পেছনে ছোটা নিয়েও বার্সা সংবাদপত্রের শিরোনাম হয়েছে। ইন্টার মিলান স্ট্রাইকার লওতারো মার্তিনেজ। করোনাভাইরাস মহামারি শুরুর আগে থেকেই তাঁকে কেনার চেষ্টা করেছে বার্সা।

কাতালান ক্লাবটির অফিশিয়াল চ্যানেলকে বার্তোমেউ আগে জানালেন পিএসজি তারকার পরিস্থিতি নিয়ে। ‘গত দলবদলের মৌসুমে আমরা তাকে কেনার চেষ্টা করেছি। কিন্তু তার ক্লাব প্রত্যাখ্যান করে। নেইমার বিক্রির জন্য না, এটাই সত্য। তাকে বিক্রি করতে না চাওয়া পিএসজির জায়গা থেকেও কিন্তু যৌক্তিক’—বলেন বার্তোমেউ। বার্সা সভাপতি এরপর আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকারকে নিয়ে বললেন, ‘আমরা লওতারোকে নিয়ে ইন্টারের সঙ্গে কথা বলেছি। কথা চলছিল, কিন্তু ফুটবল পুনরায় (করোনা মহামারির মধ্যে) মাঠে গড়ানোর পর আমরা আলোচনা থামিয়ে দেই। এখন দেখা যাক কী ঘটে। কোচের ওপর নির্ভর করছে কোনদিকে যাব।’

অর্থাৎ নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান সবুজ সংকেত দিলে আবারও লওতারোর পিছু ছোটা শুরু করবে বার্সা। এদিকে বার্সা শিবিরে এ মুহূর্তে সবচেয়ে প্রতিশ্রুতিশীল আনসু ফাতিকে নিয়েও গুঞ্জন চলছে। বার্সা নাকি তাঁকে বেঁচে দিতে পারে। কিন্তু বার্তোমেউ জানালেন, ফাতি বিক্রির জন্য না, ‘সে কোথাও যাচ্ছে না, আনসু নিজেও তা জানে। তার ভবিষ্যৎ সামনে পড়ে আছে। সে বিক্রির জন্য না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here